Tuesday - 7 - July - 2020

বেগুনি রঙের বার্তা

Published by: সংবাদ ডিজিটাল ডেস্ক |    Posted: 4 months ago|    Updated: 4 months ago

An Images

সংবাদ ডিজিটাল ডেস্ক :

দোকানে ঢুকলেই পাওয়া যায় ফুলের শুভেচ্ছা। কাজের জায়গায় আগে থেকেই হয়তো থাকে ছোট কোনো উপহার। চলতি পথে নজরে আসে বেগুনি রঙের পোশাকের আধিক্য। কফির দোকানে বসে আড্ডার ফাঁকে তোলা ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়ার সময় হ্যাশট্যাগে বোঝানো হয়, আজ একটি বিশেষ দিন। সামাজিকমাধ্যমে ভেসে বেড়ায় শুভেচ্ছা। প্রতিবছর ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত হয় এভাবেই। নতুন নতুন বার্তা থাকে প্রতিবছরই। দিনটি সাজানো হয় বেগুনি বা পার্পল রঙের আভায়। এ রঙেই যেন নারীর কাজ ও চিন্তার শক্তি বার্তা হয়ে প্রতিধ্বনি তোলে।

বিশেষ দিনে পোশাকের রং বিশেষ কিছু বোঝায়, দিনটির বার্তা দেয়। লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতার বিরুদ্ধে ১৬ দিনের বার্ষিক আন্তর্জাতিক প্রচারণার সময় (২৫ নভেম্বর-১৬ ডিসেম্বর) কমলা রঙের পোশাকে চারদিক সোচ্চার হয়। জাতিসংঘের উদ্যোগে ১৯৯১ সাল থেকে প্রতিবছর এই সময়ে প্রচারণাটি চালানো হয়। নারী ও মেয়েদের প্রতি সহিংসতা রোধ ও দূর করার আহ্বান জানাতে কমলা রং এখন শক্তিশালী এক প্রতীক।

বেগুনি রঙের ছোঁয়ায় প্রকাশ পাবে আপনার অনুভূতিবেগুনি রঙের ছোঁয়ায় প্রকাশ পাবে আপনার অনুভূতিএরও আগে থেকে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে কদর পায় বেগুনি রং। সারা পৃথিবীর নারীদের জন্য সম্মান ও বিচার প্রতিষ্ঠা করা আন্তর্জাতিক নারী দিবসের অন্যতম লক্ষ্য। মজার বিষয় হলো, বেগুনি এই দুটি বিষয়েরই প্রতীক। বেগুনি রং ঐতিহাসিকভাবেই লিঙ্গসমতা অর্জনের ক্ষেত্রে কাজ করে আসছে। এটি সবুজ ও সাদা রঙের পাশাপাশি উইমেন্স সোশ্যাল অ্যান্ড পলিটিক্যাল ইউনিয়নের রং হিসেবে সর্বপ্রথম ব্যবহৃত হয়েছিল। ওই সংগঠন বিশ শতকের গোড়ার দিকে ব্রিটেনের নারীদের ভোটাধিকার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়।

_SY_9730‘আমি এই সমতার প্রজন্ম: নারীর অধিকার উপলব্ধি করি’—এবারের আন্তর্জাতিক নারী দিবসের স্লোগান এটা। আমাদের দেশে নারী দিবসে বেগুনি রঙের পোশাক পরার চল বেশি দেখা যাচ্ছে ছয়-সাত বছর ধরে, এমনটাই জানালেন ডিজাইনার লিপি খন্দকার। দিনটির প্রতি সম্মান দেখানোর জন্য পোশাকে বেগুনি রঙের ঝলক থাকতেই পারে। কর্মজীবী নারীদের পুরো পোশাকই যে বেগুনি রঙের হতে হবে, এমন নয়। বেগুনি রঙের শাড়ি না থাকলেও, ব্লাউজটি শুধু এই রঙের হতে পারে। বাড়তি পোশাক কিনে দিনটি উদ্​যাপন করতে হবে, বিষয়টি তেমনও নয়। কামিজের স্কার্ফ বা ওড়নায় থাকতে পারে বেগুনি ছটা। শুধু অনুষঙ্গের রংটিও হতে পারে বেগুনি।

ঘরে ও বাইরে যেসব নারী কাজ করছেন বেতনে এবং বিনা বেতনে, নারী দিবসের এই রং তাদের সবার জন্যই। রংটির মাধ্যমে নিজেদের কাজ উপলব্ধি করতে পারা এবং তুলে ধরার শক্তি পান নারীরা। কর্মক্ষেত্রের পোশাকে এই রং প্রকাশ করবে আমাদের সমতা ও সম্মিলিত প্রচেষ্টা। এমনটাই মনে করেন হার স্টোরি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা জেরীন মাহমুদ হোসেন। তিনি জানালেন, পুরো মাস ধরেই তিনি বেগুনি রঙের পোশাক পরবেন, উদ্​যাপন করবেন নারী দিবস।

অন্তর্জাল ঘেঁটে জানা গেল, রাজপদ, আভিজাত্য, বিলাসিতা, শক্তি, উচ্চাকাঙ্ক্ষা ছাড়াও বেগুনি রং ধন, অমিতব্যয়, সৃজনশীলতা, প্রজ্ঞা, মর্যাদা, মহিমা, নিষ্ঠা, শান্তি, অহংকার, রহস্য, স্বাধীনতার অর্থও উপস্থাপন করে। পুরো বিশ্বের সঙ্গে নিজেকে মেলাতে সহায়তা করে।

বেগুনির প্রকাশ ভারিক্যি নানা বিষয়ের হলেও পোশাকটা ছিমছাম হলেই ভালো। কাজের জায়গায় বেগুনি জমকালো পোশাক নয়, বরং সুতি বা সিল্কের শাড়ি বেছে নিতে পারেন। হালকা কাজের টপ অথবা সাদামাটা টপও হতে পারে। কাট-ছাঁটে থাকুক আধুনিকতা। প্রকাশ পাক স্বাচ্ছন্দ্য আর আত্মবিশ্বাস।পোশাকটির নকশায় প্রকাশ পাক আত্মবিশ্বাসপোশাকটির নকশায় প্রকাশ পাক আত্মবিশ্বাস